বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ১০:৫১ পূর্বাহ্ন
add

মাগুরায় জমি নিয়ে পাষন্ড সন্তানের হামলায় পিতার চারটি আঙ্গুল কর্তন

মাসুম বিল্লাহ কলিন্স / ৫০৫ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ২৩ নভেম্বর, ২০২১
add

বিষয় সম্পত্তি নিয়ে প্রায় প্রতিটি পরিবারেই রয়েছে ঝামেলা। এই সমস্যার জের ধরে সন্তানের হাতে যখম হল জন্মদাতা পিতা।

২৩ শে নভেম্বর ২০২১ ইং রোজ মঙ্গলবার মাগুরা হাজরাপুর ইউনিয়নের উথুলী গ্রামে এক নিষ্টুর হৃদয় বিদারক ঘটনা ঘটেছে।

ভাগ্যের কি নির্মম পরিহাস সামান্য সম্পত্তির জন্য উথুলি গ্রামের বাসিন্দা, পিতা শহিদুল হকের (৭২) এর ছেলে হানিফ মিয়া (৪৬) সন্তান হয়ে বাবাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে এবং পিতার হাতের চার আঙ্গুল কেটে ফেলেছে। এ ছাড়া ঘাড়ে ও মাথায় রক্তাক্ত গুরুতর জখমে ঢাকার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষনে দূর্ভাগা পিতা।

শহীদুল হক ওই একই গ্রামে তার বড় ছেলে গোলাম মোস্তফার সঙ্গে থাকতেন। ঘটনাক্রমে জানা যায় শহিদুল হকের দ্বিতীয় সন্তান হানিফ মিয়া বিয়ের পরপরই আলাদা হয়ে সংসার জীবন শুরু করেন।

শুরু হয় সম্পত্তি নিয়ে নতুন অধ্যায়। ছোট ছেলে হানিফ মিয়া সম্পত্তি নিয়ে বাবার সঙ্গে প্রায়ই ঝগড়াঝাঁটি করতেন এবং সম্পত্তি লিখে দেয়ার কথা বলতেন।

এই ভাবে দিনের পর দিন বাবার সঙ্গে সম্পত্তি নিয়ে হানিফ মিয়ার ঝগড়াঝাঁটি হত। হানিফ মিয়ার আচার-আচরণ ব্যবহার ছিল খারাপ। যার কারণে বাবা কোনো প্রতি উত্তর করতো না।

সম্পত্তি লিখে না দেয়ার কারণে মঙ্গলবার বাবা বাড়ির পাশে একটি চায়ের দোকানে বসে ছিল, এমন সময় তার ছোট ছেলে হানিফ মিয়া ধারালো অস্ত্র নিয়ে এসে অতর্কিত ভাবে বাবার উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে এবং এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে।

ঘটনাস্থলেই বাবার হাতের চারটি আঙ্গুল কেটে পড়ে যায় এবং ঘাড়ে কোপ লাগে, এলাকার মানুষ ছুটে আসাতে, হানিফ মিয়া দ্রুত পালিয়ে চলে যায়।

এরপর এলাকার মানুষ তাকে উদ্ধার করে মাগুরা ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়।

মাগুরা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক অমর প্রসাদ বলেন, ধারালো অস্ত্রের আঘাতে তালুসহ আঙুল বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। তাছাড়া মাথা থেকে ঘাড় বরাবর ধারালো ছুরির আঘাত রয়েছে। তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। তবে রোগীর অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাকে ঢাকায় উন্নত চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে।

মাগুরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মঞ্জুরুল আলম বলেন, গুরুতর জখম শহীদুল হকের চিকিৎসা চলছে। ছেলে হানিফ মিয়াকে আটকের চেষ্টা চলছে।

add

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
error: Content is protected !!
error: Content is protected !!