শিরোনাম
মাগুরা দ্বারিয়াপুর দরবার শরীফে ৮৯ তম বার্ষিক ইসালে সওয়াব অনুষ্টিত মাগুরায় ভূমি কর্মকর্তাদের ছয় দফা দাবীতে মিছিল, স্মারক লিপি প্রদান মাগুরায় প্রেমিক প্রেমিকা গলায় ফাসঁ লাগিয়ে আত্বহত্যা করেছে মাগুরা’র ঐতিহ্যবাহী থিয়েটার ইউনিট-২৬ তম বর্ষে মাগুরায় ক্রিড়া, সাংস্কৃতিক ও কৃষি দপ্তরে জেলা পরিষদের উপকরণ বিতরণ মাগুরায় “গল্পটা আমাদের” নাটকের তিনটি প্রদর্শনী করেছে থিয়েটার ইউনিট জমকালো আয়োজনে ৭ ডিসেম্বর মাগুরা মুক্ত দিবস উদযাপন মাগুরায় ৩৩৩ জন গ্রাম পুলিশকে বাইসাইকেল প্রদান মাগুরায় স্থানীয় ভাবে উদ্ভাবিত লাগসই প্রযুক্তির প্রদর্শনী ও মেলা অনুষ্ঠিত আজ ঐতিহাসিক কামান্না দিবস- ২৭ শহীদের কথা
বুধবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২২, ০৪:২৫ অপরাহ্ন
add

করোনায় মেলা বিহীন কাত্যায়নী পূজা

শেখ ইলিয়াস মিথুন / ২৩১ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : শনিবার, ২১ নভেম্বর, ২০২০
add

করোনা প্রাদুর্ভাবে মাগুরার  ঐতিহ্যবাহী কাত্যায়নী পূজা  এ বছর মেলা বিহীন শুধুই ধর্মীয় আনুষ্ঠানিকতা। ষষ্ঠী পূজার মধ্য দিয়ে শুক্রবার থেকে শুরু হয়েছে, যা ২৫ নভেম্বর শেষ হবে।

হিন্দু সম্প্রদায়ের পূজা হলেও অন্যান্য বছরগুলোতে দেশ-বিদেশের লাখো নারী-পুরুষের উপস্থিতিতে এটি সর্বজনীন প্রাণের উৎসবে রূপ নিতো।

সনাতন ধর্মে প্রধান ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা হলেও মাগুরায় এর ব্যতিক্রম। মাগুরায় কাত্যায়নী পূজাই বেশি জাঁকজমক হয়। উপমহাদেশে কেবল মাগুরাতেই এত জাঁকজমকপূর্ণভাবে কাত্যায়নী পূজা অনুষ্ঠিত হয়।

করোনার কারণে পূজার আনুষ্ঠানিকতা ছাড়া অন্য সব আয়োজনই সীমিত। কাত্যায়নী পূজা উপলক্ষে প্রতিবছর লাখো মানুষের ঢল নামে মাগুরায়।

এ জেলায় হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের এই উৎসবের ঐতিহ্য প্রায় শত বছরের। রঙ বেরঙের আলোকসজ্জা ও পূজার আনুষ্ঠানিকতা দেখতে দেশের অন্যান্য এলাকার পাশাপাশি প্রতিবেশী বিভিন্ন দেশের মানুষও মাগুরায় ভিড় জমান।

পূজাকে কেন্দ্র করে মাসব্যাপী চলে আলোকসজ্জা ও গ্রামীণ মেলা। এবার সে জমজমাট আয়োজন থাকছে না।

দৈনিক মাগুরা  কন্ঠ  কে জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি এডভোকেট প্রদ্যুৎ কুমার সিংহ জানান, এ বছর মাগুরা পৌর এলাকায় ১৬টি, সদর উপজেলায় ৩১টি, শ্রীপুরে ১৩টি, মহম্মদপুরে ১১টি ও শালিখায় ২৩টি মিলিয়ে জেলায় মোট ৯৪টি মন্ডপে কাত্যায়নী পূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

করোনা প্রাদুর্ভাবের কারণে  সরকার ও স্থানীয় প্রশাসনের  নির্দেশে এবার পূজায় মেলা নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

স্বাস্থ্যবিধি মেনে পূজামণ্ডপে প্রতিমা দর্শন শেষে রাত ৯টার মধ্যে স্থান ত্যাগ করতে বলা হয়েছে। এছাড়া, অন্যবারের মতো আলোকসজ্জা ও সাউন্ড সিস্টেম সীমিত আকারে পরিবেশনের জন্য প্রতিটি পূজামণ্ডপ পরিচালনা কমিটিকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে’।

পুলিশ সুপার খান মুহাম্মদ রেজোয়ান জানান, করোনা পরিস্থিতিতে সবাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে পূজার আনুষ্ঠানিকতা শেষ করবে, সে বিষয়ে পুলিশ তৎপর থাকবে।

add

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
error: Content is protected !!
error: Content is protected !!